শিরোনাম
নওগাঁ পোরশায় আদিবাসীদের হামলায় মৃত্যু থেকে ফিরে আসলো এক চা দোকান্দার – প্রথম বেলা

নওগাঁ পোরশায় আদিবাসীদের হামলায় মৃত্যু থেকে ফিরে আসলো এক চা দোকান্দার

হাবিবঃ
নওগাঁ জেলার পোরশা উপজেলার সরাইগাছী মোড়েই মাতাল আদিবাসীদের ভয়ংকর আক্রমনের শিকার হয়েছে মোঃ নজরুল ইসলাম নামের এক চা দোকান্দার।
ভিকটিম নজরুল,স্থানীয়দের ও মামলা সুত্রে জানা যায়,
প্রতিদিনের মত, দিন রাত চায়ের দোকান খোলা রেখে চা,বিস্কুট,পাউরুটি,কেক,কলা,পান,বিড়ি,সিগারেড কেনা-বেচা করে মোঃ নজরুল ইসলাম। গত ১৪/০৮/২০২০ ইং তারিখ রাত শেষে ১৫/০৮/২০২০ ইং রাত্রী অনুমান ২.৩০ মিনিটের সময়, উক্ত উপজেলার কাঠপুকুর গ্রামের দেওয়ানে বাড়ীর কন্যা যাত্রী নিয়ে ৩ টা স্টেয়ারিং আলা বড় ভটভটি দোকানের সামনে এসে দাঁড়ায়। এবং সেই ভটভটি থেকে ২০/২৫ জন মদপ্য আদিবাসী কন্যা যাত্রীরা নেমে,যে যার মত করে ,বিস্কুট,পাউরুটি,কেক,কলা,বিড়ি,সিগারেড খাওয়া শুরু করে দেয়। এরপর দোকান্দার নজরুল হিসেব করে টাকা দিতে বলিলে, আদিবাসীরা টাকা না দিয়ে তর্ক শুরু করে,আবার কেহবা ধাক্কা-ধাক্কি দিতে লাগে। এক পর্যায়ে খাওয়ার টাকা না দিয়ে সবাই ঝাঁকি দিয়ে দোকান্দার নজরুল ইসলামকে এলোপাতারি ভাবে সকলে মিলে কি,ঘঁষি মারতে লাগে। ১নং আসামী পারিলা গ্রামের মঙ্গল তিগ্গার ছেলে পলাশ তিগ্গা তার হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারিলে, মাথা থেকে কান পর্যন্ত ও মাথার হাড় পর্যন্ত কেটে গিয়ে অস্বাভাবিক ভাবে রক্ত বের হতে শুরু করে। এবং ৪ নং আসামী কাঠপুকুর গ্রামের জগেশ কেরকেটারর ছেলে, লক্ষিরাম কেরকেটার হাতে থাকা চাকু দিয়ে তার গলায় আঘাত করে। এরপর সে চিৎকার দিয়ে মাটিতে পড়ে ছটপট করতে লাগলে আশে পাশের লোকজন এসে মদপ্য আদিবাসীদের হাত থেকে উদ্ধার করে পোরশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থা বেগতিক (খারাপ)দেখে রাজশাহী মেডিকেলে রেফার্ড করেন। অন্যদিকে অন্যান্য আসামীরা পালিয়ে গেলেও, স্থানীয়রা ৫জন আসামীকে হাতে নাতে আটক করে পোরশা থানার পুলিশকে খবর দিয়ে তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করে। ভিকটিম রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় পরের দিন বাঁকী আসামীরা রাতের অন্ধকারে তার দোকানের মালা-মাল ও টাকা,পয়সা লুট করে নিয়ে যায়।
আক্রমনের শিকার নজরুল ইসলাম ও তাহার স্ত্রী কান্না জড়িত কন্ঠে জানায়, তাদের ছোট, ছোট দুইটি বাচ্চা আছে, এই দোকানের আয়-রোজগার দিয়ে তার সংসার চলে ও দুইটি বাচ্চাকে মানুষ করছে। একদিকে তার চিকিৎসা,অন্যদিকে তার দোকানও লুটপাট করায়,তাদের অনাহারে,অর্ধহারে বাচ্চাদের নিয়ে দিনাপাত করতে হচ্ছে। তারা এই হামলার তিব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সুষ্ঠ বিচার চান প্রশাসনের কাছে।
এ বিষয়ে পোরশা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শফিউল আজম মোবাইলে ফোনে জানান, ৫ জন আসামীকে আটক করে জেল-হাজতে প্রেরন করা হয়েছে এবং তদন্ত চলছে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

0 Reviews

Write a Review

Read Previous

করোনা শনাক্তে অ্যান্টিজেন টেস্ট অনুমোদন

Read Next

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান

%d bloggers like this: