শিরোনাম
ঢাকা উওর সিটি কর্পোরেশন সংরহ্মিত ১৫ আসনের মহিলা কাউন্সিলর সোনিয়া সুলতানা রুনার রক্তে মুজিব আদর্শ টগবগ করে – প্রথম বেলা

ঢাকা উওর সিটি কর্পোরেশন সংরহ্মিত ১৫ আসনের মহিলা কাউন্সিলর সোনিয়া সুলতানা রুনার রক্তে মুজিব আদর্শ টগবগ করে

সামিউল ইসলামঃ ঢাকা উওর সিটি কর্পোরেশন সংরহ্মিত ১৫ আসন মহিলা কাউন্সিলর সোনিয়া সুলতানা রুনা। সম্ভবত বাংলাদেশের সকল সিটি কর্পোরেশন এর কাউন্সিলরদের মধ্য সব চেয়ে কম বয়সী কাউন্সিলর সোনিয়া সুলতানা রুনা। তার পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ড রাজনৈতিক। রুনার পরিবারে সবাই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তাই ছোট বেলা থেকেই বঙ্গবন্ধুর নাম জপেই বড় হয়েছেন তিনি। রুনার রক্তে মুজিব আদর্শ টগবগ করে। ছাত্র জীবন থেকেই রুনা আওয়ামী পরিবারের সদস্য। কলেজ লাইফে করেছেন ছাত্রলীগ। বর্তমানে তিনি মহিলা আওয়ামীলীগের সক্রিয় সদস্য। জানপ্রান দিয়ে ভালবাসেন আওয়ামীলীগ কে। পারিবারিক ভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এক আদর্শিক যুবলীগ নেতার সাথে। তার শশুর একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার বীরত্ব জনশ্রুত। নিজ কর্ম গুনে রুনা এলাকার মানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায় আশ্রয় লাভ করেছেন অনেক আগেই। কিন্তু তা তিনি নিজেও জানতেন না।

Image may contain: 3 people, people standing

জানলেন এবারের ডিএনসিসির নব গঠিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচনের সময়। নির্বাচনের তফশিল ঘোষিত হবার পর পরিবার এবং এলাকাবাসী মিলে রুনাকে প্রার্থী হতে বলেন। রুনা আসলের এর জন্য মোটেও প্রস্তুত ছিলেন না। কিন্তু জনতার ভালোবাসা এড়িয়েও যেতে পারছিলেন না। তাই বাধ্য হয়েই হয়ে যান প্রার্থী। কিন্তু বাঘা বাঘা প্রার্থীদের বিপরীতে পাশ করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে মনে শংকা কাজ করছিলো। কিন্তু সব শংকার অবসান ঘটিয়ে তিনি জনরায়ে বিজয়ী হন। এ বিজয় শুধু তার একার নয় এ বিজয় ছিলো জনতার এ বিজয় ছিলো পিতা মুজিবের আদর্শের। নির্বাচনে বিজয়ী হবার পর থেকে সোনিয়া সুলতানা রুনার বসে থাকার সময় নেই। তিনি নেমে পড়েন জনতার সেবায়। তাকে যে জনতার আস্থার প্রতিদান দিতে হবে। যেহেতু এ নির্বাচন স্বল্প সময়ের জন্য তাই এসব নতুন এলাকার জন্য ডিএনসিসির তেমন বাজেট নেই। কিন্তু তাই বলে কি বসে থাকা যায়। নিজ অর্থায়নেই জন কল্যান মুলক কাজে নেমে যান রুনা। মানুষের বিপদে আপদে সহায়তা প্রদান, ভাঙ্গা রাস্তা মেরামত, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, ডেঙ্গু থেকে বাচার উপায় জানিয়ে মানুষকে সচেতন করা, ঈদ এবং পুজায় জনতার মাঝে উপহার বিতরন, স্কুল মাদরাসা ও মসজিদ মন্দিরে অর্থ সহায়তা করা সহ এলাকাকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার সর্বাত্মক প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয়ে পড়েন ভোটারদের ভালোবাসার পাত্রী সোনিয়া সুলতানা রুনা।

দৈনিক প্রথম বেলার সাথে কথা হয় এই জনতার কাউন্সিলরের তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে ধারন করে রাজনীতি করি। কোনো ব্যক্তি রাজনীতি নয়। মানুষের কল্যানে দেশের কল্যানে জননেত্রী শেখ হাসিনা যে নির্দেশনা দেবেন তা মুজিব আদর্শ এর একজন কর্মী হয়ে সেটা বাস্তবায়ন করে যাবো। নেত্রী শিখিয়েছেন সত্য ও ন্যায়ের পথে অবিচল থেকে কাজ করে যেতে। যারা এ পথ অনুসরণ করে তাদের সাফল্য আসবেই। আমি যতদিন বেচে থাকবো সেটা বুকে ধারন করেই সম্মুখে এগিয়ে যাবো।

Image may contain: 7 people, people smiling, people standing

তিনি আরো বলেন, আজকাল বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বলে কেউ কেউ চেঁচান। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বিক্রি করে সস্তায় বিবেক বিকিয়ে দিচ্ছেন কেউ কেউ। তাঁরা কি আদৌ জানেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ কি? রাজনীতিটা তিনি করতেন গণমানুষের জন্যে। তিনি বজ্রকন্ঠে বলেছিলেন, “আমি প্রধানমন্ত্রীত্ব চাই না। আমরা এদেশের মানুষের অধিকার চাই।“ তার মন কাঁদত কৃষক শ্রমিক নিপীড়িত মানুষের জন্য। তিনি কথা বলতেন ন্যায়ের পক্ষে। এজন্য জীবনের বড় অংশই কেটেছে যার কারাভোগ করে করে। মানুষটাকে ঘিরে কত কবি কাব্য রচনা করেছেন। আর তিনি রচনা করেছিলেন একটা ইতিহাস, দেশের ইতিহাস, স্বাধীনতার ইতিহাস। “আগে আমার দেশ,তারপরে পরিবার।” যিনি দেশের মানুষকেই সবসময় পরিবার ভেবেছেন,নিজের পরিবারকে ঠিকমতো সময় দেয়া হয়ে ওঠেনি তার। জাতির পিতার জীবনী আমি প্রতিনিয়ত পড়ি, তা থেকে কিছু শিখি সে শিক্ষাই মানুষের মাঝে সমাজের উপর প্রতিফলনের চেস্টা করি। আমার জন্য সকলে দোয়া করবেন জেন আমি আমার উপর জনগণ যে আমানত দিয়েছে আমি যেন তার রক্ষনা বেক্ষন করতে পারি।

0 Reviews

Write a Review

Read Previous

মুহাম্মদ রায়হান রানার কবিতায় মেলে কল্পনার অনুকরণ

Read Next

বিভিন্ন অভিযোগে কুড়িগ্রামে গ্রেফতার-৩১ : মামলা-৬

%d bloggers like this: