শিরোনাম
মার্কোসারভূক্ত দেশের সঙ্গে এফটিএ’র সিদ্ধান্ত ডিসেম্বরে: বাণিজ্যমন্ত্রী – প্রথম বেলা

মার্কোসারভূক্ত দেশের সঙ্গে এফটিএ’র সিদ্ধান্ত ডিসেম্বরে: বাণিজ্যমন্ত্রী

দক্ষিণ আমেরিকার বাণিজ্যিক জোট মার্কোসারভূক্ত দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির (এফটিএ) সিদ্ধান্ত আগামী ডিসেম্বরে হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেন,‘মার্কোসারভূক্ত চার দেশ ব্রাজিল,আর্জেন্টিনা, প্যারাগুয়ে ও উরুগুয়ে প্রত্যেকে বাংলাদেশের সঙ্গে প্রস্তাবিত এফটিএ স্বাক্ষরে সম্মত হয়েছে। তবে এ বিষয়ে তারা বিস্তারিত আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে চায়। এ জন্য আগামী ডিসেম্বরে আমাদের প্রস্তাবগুলো নিয়ে আলোচনা করতে তারা একটি সভা ডেকেছে। আশা করছি, সেখান থেকে আমরা ফলপ্রসু ফলাফল পাবো।’

বাণিজ্যমন্ত্রী মনে করেন,এফটিএ চুক্তির মাধ্যমে মার্কোসারভূক্ত দেশসমূহে বিদ্যমান ৩৫ শতাংশ শুল্কহার হ্রাস করলে তৈরি পোশাকসহ অন্যান্য টেক্সটাইল পণ্য, ওষুধ, তামাক, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, টেবিল ওয়্যার প্রভৃতি পণ্যের রফতানি বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

আজ বুধবার সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ব্রাজিলসহ মার্কোসারভুক্ত দেশগুলোর সফর নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মফিজুল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব তপন কান্তি ঘোষ, বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

টিপু মুনশি বলেন, বিদ্যমান উচ্চ শুল্কহার সেখানে রফতানি সম্প্রসারণে বড় বাঁধা। তবে সেখানকার ব্যবসায়ীরা আমাদের সঙ্গে ব্যবসা করতে আগ্রহী। সরকারও আন্তরিক। তারা আগের অবস্থান থেকে সরে আসতে চায় বলে আমার কাছে মনে হয়েছে।

তিনি জানান, মার্কোসারভূক্ত দেশসমূহের সঙ্গে ব্যাণিজ্য বাড়াতে আগামী ৭ ও ৮ নভেম্বরে ব্রাজিলের সাঁও পাওলোতে একক দেশ হিসেবে তৈরি পোশাক নিয়ে একটি মেলা ও ফ্যাশন শো’র আয়োজন করা হবে। বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় এ মেলার আয়োজন করবে এফবিসিসিআই।

মেলায় তৈরি পোশাকসহ সবধরনের পণ্য প্রদর্শিত হবে। গত ১৮ থেকে ২৩ আগস্ট বাণিজ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, প্যারাগুয়ে ও উরুগুয়ে সফর করে। প্রতিনিধিদলে সরকারি কর্মকর্তা ছাড়াও ব্যবসায়ীরা ছিলেন।

সফরকালে পারস্পারিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট খাতসমূহ চিহ্নিত করতে আর্জেন্টিনা ও প্যারাগুয়ের সঙ্গে আলাদাভাবে দুটি যৌথ কমিশন গঠনের ক্ষেত্রে মতৈক্য হয়।

সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের উত্তরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী বছর সাধারণ মানুষ যাতে চামড়ার ন্যাষ্যা মূল্য পায়, সেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাধারণ মানুষকে চামড়ার মূল্য থেকে আর বঞ্চিত হতে দেব না। তিনি বলেন, গত সোমবার মন্ত্রীসভায় চামড়ানীতি অনুমোদন হয়েছে। সেখানে কাঁচা চামড়া রফতানির সুযোগ রাখা হয়েছে। সুতরাং তৃনমূল পর্যায়ে চামড়ার মূল্য পেতে বেগ পেতে হবে না।

0 Reviews

Write a Review

Read Previous

আবার বাড়ল স্বর্ণের দাম

Read Next

সাঈফ ইবনে রফিকের একগুচ্ছ অনুগল্প

%d bloggers like this: